You are currently viewing বারোমাসি শিউলি ফুল গাছের প্রতিস্থাপন পদ্ধতি এবং পর্যায়ক্রমে তার সঠিক পরিচর্যা পর্যালোচনা:

বারোমাসি শিউলি ফুল গাছের প্রতিস্থাপন পদ্ধতি এবং পর্যায়ক্রমে তার সঠিক পরিচর্যা পর্যালোচনা:

আমরা সবাই জানি শিউলি ফুল মানেই শরতকাল, আর শরতকাল মানেই শিউলি ফুল। কিন্তু একথাও ঠিক যে, তোমরা অনেকেই জানো যে আমাদের দেশে বারোমাসি শিউলিফুলও পাওয়া যায়। তবে যারা জানো না তারা যদি একটু সময় নিয়ে এই লেখাটি পড়ো বা এই সম্পর্কে আলোচিত *বারোমাসি শিউলি প্রতিস্থাপন ও সম্পুর্ন পরিচর্যা https://youtu.be/mFrv6eJ5xVU আমার ভিডিওটি দেখে তাহলে মোটামুটি একটা ধারণা পেয়ে যাবে ।

যাই হোক যারা যারা আমার কাছ থেকে বারোমাসি শিউলি ফুলের গাছ কিনেছো এবং ভবিষ্যতেও যারা নেবে তাদের জন্য, এবং আমার সমস্ত গাছ প্রেমী মালী বন্ধুদের জন্য আরও একবার লিখিত রূপে পর্যালোচনা করা হলো । এর ফলে শিউলি পরিচর্যা ও প্রতিস্থাপন সম্পর্কে একটা স্পষ্ট ধারণা পেয়ে যাবে এবং খুব সহজেই তোমরা তোমাদের বাগানে বারোমাসি শিউলি ফুলের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে পারবে । শরতের শিউলি বা বারমাসি শিউলির প্রতিস্থাপন প্রতিস্থাপন ও পরিচর্যা প্রায় একই রকমের তবুও যেহেতু বারোমাসি শিউলি সারাবছরই ফুল দেবে তাই তার জন্য একটু বেশি যত্নের প্রয়োজন হয়। এই প্রজাতির শিউলি গাছটি আকারে এ একটু ছোট্ট এবং ঝোপালো হয় । শিউলি সাধারণত ডাল কেটে, গুটি কলম থেকে, শিকড় থেকে এবং বীজ থেকে চারা এই চার ভাবেই করা যায় । তবে ফুল বেশি পাওয়া যায় কলমের গাছ থেকেই। আর কেনার সময় গাছে যদি ছোট ছোট ফুল থাকে সেগুলো কেটে ফেলতে হবে, তাহলে এর থেকে যে কাক্ষিক মুকুল আছে সেখান থেকে নতুন শাখা আসবে আর বেশি বেশি ফুল ফুটবে । আচ্ছা এবার পর্যায়ক্রমে আলোচনা শুরু করা যাক।…………

টব নির্বাচন:- যেহেতু এরা রুট বাউন্ড বা শিকড় ছড়িয়ে থাকতে পছন্দ করে তাই টব সবসময় ১২ ইঞ্চি বা তার থেকে যত বড় হয় তত ভালো । তবে আট বা দশ ইঞ্চি ও চলতে পারে তবে সেখেত্রে ছ’মাস পরে পরে রিপট করতে হবে । এমনিতেও সব গাছের ক্ষেত্রেই এক বছর অন্তর শিকড় কাটাই ছাটাই করে রিপট করলে গাছ ভালো থাকে ।

*মাটি”:- এরা সাধারণত হাল্কা দোয়াশ মাটি । অর্থাৎ একভাগ এটেঁল মাটি বা যেকোন গার্ডেন সয়েল,দুই ভাগ নদীর সাদা বালি একভাগ ভার্মি কম্পোস্ট, একভাগ এক বছরের পুরনো পচাঁনো গোবর সার অথবা পাতাপঁচা সার আর আদ্রতা ধরে রাখার জন্য একভাগ কোকোপিট এবং বারো ইঞ্চি টবের মাটির জন্য এক চামচ ইউরিয়া হাফ চামচ ফসফেট ; আর আট ইঞ্চির জন্য ওয়ান ফোর্থ চামচ ইউরিয়া ও ওয়ান ফোর্থ বা হাফের হাফ চামচ ফসফেট নিয়ে মাটির সঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে।

প্রতিস্থাপন পদ্ধতি:- এসময় সবথেকে বেশি খেয়াল রাখতে হয় ড্রেনেজ সিস্টেমের দিকে, যেটা আমি আমার প্রায় সব ভিডিওতেই দেখিয়ে থাকি। বন্ধুরা তোমরা একটু সময় করে ওটা দেখে নিও । এবার নার্সারি থেকে আনা গাছটিকে নতুন টবে মাটি দিয়ে সঠিক উচ্চতায় সঠিক স্থানে খুব যত্ন সহকারে সুন্দর করে বসিয়ে দিতে হবে । আর তারপর টবের একপাশ থেকে (টব ভর্তি করে)ধীরে ধীরে জল ঢেলে দিতে হবে।

*স্থান নির্বাচন:- বারোমাসি শিউলিও সেমি শেড অর্থাৎ কম রোদ বা কড়া রোদ যে কোন যায়গায় ই সুন্দর বেঁচে থাকতে পারে এবং বেশ ভালো ফুল দেয় । তবে যত রোদ তত ফুল একথা তো আশাকরি সব মালী বন্ধুরাই জানো । একদম ছায়া বাদে বাকি সব ক্ষেত্রে এ দারুণ সুন্দর করে গাছটি ফুল ফোটায়।

জল:- জলের বিষয়েও এ ভীষণ ই আন্তরিক জল বেশি দাও বা কম দাও এ তেমন কিছু মাইন্ড করে না তবে গাছের গোড়ায় জল জমে গেলে এ অভিমানে স্নান,খাওয়া,ফুল দেওয়া সব বন্ধ করে দেয় এমনকি মারা ও যেতে পারে এমন করে বেশিদিন থাকলে।

খাবার:- তুমি যদি আমার বানানো গাছের খাবার দাও তাহলে আর বাইরের অন্য কোন সার দেওয়ার প্রয়োজন নেই। তুমি যদি আমার বানানো গাছের খাবার নিতে চাও তাহলে 8972774914 এই নং এ হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে যোগাযোগ করে নিতে পারো। তবুও তুমি যদি নিজে নিজেই খাবারের ব্যবস্থাপনা করতে চাও তাহলে জুন থেকে নভেম্বর পর্যন্ত এর নিয়ম করে খাবার দিতে হবে । সারাবছর নিদৃষ্ট সময় পরপর সর্ষে খইল, হাড়গুরো দিতে থাকলে মন্দ হবে না, ফুল ও মোটামুটি ভালোই হবে । তবে ঝুড়ি ঝুড়ি শিউলি কুড়তে হলে তোমাকে অবশ্যই করে একটু ভিন্ন রকম যত্ন নিতে হবে। প্রত্যেক বারো ইঞ্চি টবের জন্য হাফ চামচ ডি এ পি বাংলাদেশের বন্ধুরা টি এস পি দু’চামচ ফসফেট আর একচামচ পটাশ যদি দাও প্রতি মাসে নিয়ম করে অথবা জুন থেকে নভেম্বর পর্যন্ত তাহলে কিন্তু গাছটা ঝাঁকরা হবে আর প্রচুর প্রচুর ফুল হবে।

রোগ পোকা ও তার প্রতিকার— রোগ পোকার কথা জানতে হলে ভিডিওটি দেখতে অনুরোধ করবো।

আর এসব সামান্য কিছু নিয়ম মেনে চললে, আর সময় বের করে অল্পস্বল্প একটু যত্ন করলে বন্ধুরা রোজ ভোরে তোমাদের ব্যালকনি, ছাদ বা উঠোন জুড়ে শিউলি ফুলে ফুলে সেজে উঠবে; গ্রীষ্ম, বর্ষা, হেমন্ত, শীত বসন্ত প্রতিদিনই শরতের আমেজ নিয়ে হাজির হবে ঝাঁকে ঝাঁকে শিউলি শতদল ।।
**একটা কথা এখানে জানানো খুব দরকার যেটা আমার ভিডিওতেও বলা হয়নি, যে এই বারোমাসি শিউলিতে প্রথম বছরে বা দ্বিতীয় বছরে যে পরিমান ফুল ফোটে তার থেকে তৃতীয় বছরে ফুল ফোটার প্রবোনতা অনেকে বেশি।

Hortichulture Aarindam

আমি অরিন্দম, একজন গর্বিত ভারতীয় নাগরিক, প্রকৃতি প্রেমিক, ফটোগ্রাফার এবং ইউটিউবার। এটি আমার ব্লগ যেখানে আমি গাছ সংক্রান্ত আমার কাজ এবং বিশেষ বিশেষ গাছের পরিচর্যা পদ্ধতি শেয়ার করি।

This Post Has One Comment

  1. Madhabi Biswas

    ধন্যবাদ দাদা🙏🙏 এভাবে বিস্তারিত বর্ণনা দেওয়ার জন্য। যদিও আমি YouTube এ আপনার সবগুলো video দেখি।আমি আপনার কাছে থেকে বারো মাসি শিউলি ফুল গাছ নিয়েছি,এবছর অনেক ফুল ফোটেছে ।এই ফুল ফোটা শেষ হলে কিভাবে গাছের যত্ন করবো, কোন video Link থাকলে জানাবেন।

Leave a Reply